Notice :
Welcome To Our Website...
“শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলার বাস্তবায়ন ফিলিস্তিনি জনগনের জন্য প্রেরনাদায়ক”

“শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলার বাস্তবায়ন ফিলিস্তিনি জনগনের জন্য প্রেরনাদায়ক”

মঙ্গলবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে মুজিব বর্ষ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ দূতাবাস আম্মানের উদ্যোগে “স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা” শীর্ষক ওয়েবিনারের আয়োজন করা হয়। উক্ত ওয়েবিনারে পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন প্রধান অতিথি এবং ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্র মন্ত্রী রিয়াদ আল মালিকি বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এই ওয়েবিনারে আরও বক্তব্য রাখেন জর্ডানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত নাহিদা সোবহান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী জনাব শাহ আলি ফরহাদ ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি বরেন্য মফিদুল হক।

রাষ্ট্রদূত নাহিদা সোবহান তাঁর স্বাগত বক্তব্যে বলেন বঙ্গবন্ধুর চেতনা ও আদর্শকে বৈশ্বিক ভাবে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে আম্মান দূতাবাস বছর ব্যাপী একাধিক সেমিনারের পরিকল্পনা করেছে। তারই অংশ হিসেবে আয়োজিত প্রথম সিমানারটি নিঃসন্দেহে বিশেষ গুরত্ব বহন করে। বাংলাদেশ সব সময়ই তার সাফল্য ও সমৃদ্ধি লাভের ক্ষেত্রে ভ্রাতৃপ্রতিম দেশ সমুহকে সাথে পেয়েছে। তাই বাংলাদেশের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকীতে আজকের সোনার বাংলার সাফল্য গাঁথার আনন্দঘন উদযাপনে জর্ডান ও ফিলিস্তিনের জনগনকে উন্নয়নের অংশীদার হিসেবে বিবেচনা করছে। রাষ্ট্রদূত নাহিদা সোবহান আর বলেন বঙ্গবন্ধু ও আমদের স্বাধীনতার ইতিহাস উতপ্রোত ভাবে জড়িত। বাংলাদেশকে নিয়ে যে স্বপ্ন বঙ্গবন্ধু দেখতেন তাঁরই কন্যার হাত ধরে বাস্তবায়িত হয়ে চলেছে সেই স্বপ্নের বাংলাদেশের।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে বলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি “সোনার বাংলা”র স্বপ্ন দেখতেন। তিনি যে সোনার বাংলা স্বপ্ন দেখেছিলেন – তা ছিল ক্ষুধা, দারিদ্র্য, নিরক্ষরতা এবং সাম্প্রদায়িকতা মুক্ত দেশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আজ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, তথ্য, প্রযুক্তি, নারীর ক্ষমতায়ন ইত্যাদিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নের “রোল মডেল” হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানি খাত বিশ্ব অর্থনীতিতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। আমরা এখন খাদ্য ও মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। ক্ষুধার কারণে এখানে কেউ মারা যায় না। ২০১০ সাল থেকে ৮ মিলিয়ন মানুষকে দারিদ্র্যের বাইরে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। বাংলাদেশ ইতিমধ্যে সফলভাবে এমডিজির লক্ষ্য সমুহ অরজন করেছে এবং বর্তমানে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বাংলাদেশ পরবর্তী শতাব্দীতে নিজেকে সর্বাধিক উন্নত দেশ হিসাবে গড়ে তুলতে ডেল্টা প্ল্যান -2100 গ্রহণ করেছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার সফল বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরলস চেষ্টা বাংলাদেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে চলেছে।

ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিয়াদ মালিকি তাঁর বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশ একটি মানবিক রাষ্ট্র হিসেবে সব সময়ই বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের পাশে থেকেছে। দখল ও বৈষম্যের বিরুদ্ধে বহু বছরের সংগ্রামের কারনে বঙ্গবন্ধু আমাদের ফিলিস্তিনি ভাইদের বেদনা দৃঢ় ভাবে অনুধাবন করেছিলেন। ১৯৭৪ সালে যখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবারের মতো জাতিসংঘের সাধারন অধিবেশনে যে বক্তব্য রাখেন সেখানেও তিনি ফিলিস্তিনের প্রতি তার দ্ব্যর্থহীন সমর্থন ব্যক্ত করেন। ফিলিস্তিনের প্রতি বঙ্গবন্ধুর সেই সমর্থনের ঘোষণার প্রতি আজও বাংলাদেশ অবিচল রয়েছে। শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলার বাস্তবায়ন দৃশ্যমান হওয়া ফিলিস্তিনের জনগনের জন্যও উৎসাহের বিষয়। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ফিলিস্তিনের জনগণের অধিকারের প্রতি যে ভ্রাতৃত্ববোধ অব্যাহত রেখেছেন তা সত্যিই অতুলনীয়। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের বাস্তবভিত্তিক অন্তর্ভুক্তি মুলক উন্নয়ন পৃথিবীর উন্নয়নশীল দেশ গুলোর জন্য তা এক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী শাহ আলী ফরহাদ বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের অবিসংবাদিত নেতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার বাস্তবায়নের সফল কারিগর। যে সপ্ন একদিন বঙ্গবন্ধু দেখেছিলেন তাঁরই সুযোগ্য কন্যা আজ তাঁর বাস্তবায়নে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। শাহ আলী ফরহাদ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার মর্মার্থ ব্যাখ্যা করে বলেন, ক্ষুধা, দারিদ্র ও শোষণ মুক্ত যে অসম্প্রদায়িক স্বাধীন বাংলাদেশের সপ্ন জাতির পিতা দেখেছিলেন, তা বাস্তবায়নে শেখ হাসিনাকে নানা ঘাত প্রতিঘাত মোকাবেলা করতে হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির পথ চলাকে যারা অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে চেয়েছিল তাদের সকল ঘৃণ্য চক্রান্তকে নস্যাৎ করে দিয়ে বাংলাদেশ শেখ হাসিনার হাত ধরে হেটে চলেছে উন্নয়নের মহাসড়কে। জনাব শাহ আলী ফরহাদ তার বক্তব্য শেষে বাংলাদেশের উন্নয়ন বিষয়ক একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করেন।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি জনাব মফিদুল হক মুক্তি যুদ্ধে বঙ্গবন্ধুর অবিস্মরণীয় নেতৃত্বের কথা তুলে ধরেন এবং একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের জন্য বঙ্গবন্ধুর যে আকাঙ্ক্ষা, যে স্বপ্নের বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু দেখতে চেয়েছিলেন তা বাস্তবায়নে দলমত নির্বিশেষে একই জাতীয়তা বোধ ও চেতনায় উদ্ভুদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

পররাষ্ট্র সচিব তাঁর সমাপনি বক্তব্যে বলেন বঙ্গবন্ধু একটি স্বপ্নের নাম। বাংলাদেশকে বিশ্বের মানচিত্রে স্থান করে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু। স্বাধীন রাষ্ট্রের শুরুতেই বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের কূটনীতিক আদর্শ নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন। একজন সফল স্বপ্নদ্রষ্টার কারনেই পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে আত্মপ্রত্যয় ও আপন মহিমায় আজ উড়ে চলেছে লাল সবুজের পতাকা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2017 doorbin24.Com