Notice :
Welcome To Our Website...
যেভাবে শিকার ধরে পৃথিবীর একমাত্র ড্রাগন

যেভাবে শিকার ধরে পৃথিবীর একমাত্র ড্রাগন

পৃথিবীতে আসলেই আছে ড্রাগন! ভয়ঙ্করদর্শন এ প্রাণীর আবাস ইন্দোনেশিয়ার কোমোডো দ্বীপে। পুরো পৃথিবীতে শুধু এখানেই এদের পাওয়া যায়। এজন্য দ্বীপের নামের সাথে মিলিয়ে কোমোডো ড্রাগন নামেই ডাকা হয় এই বিরল প্রজাতির সরীসৃপকে। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম সিএনএন এ প্রাণীর শিকার ধরার পদ্ধতি নিয়ে এক প্রতিবেদন করেছে, আলোচনা করা হয়েছে কোমোডো ড্রাগনের খাদ্যাভাস নিয়েও। এছাড়া জানা গেছে, প্রায় ৯৮৫ ফুট পর্যন্ত দেখতে পায় এ প্রাণীটি।

প্রথম দেখায় অনেকেই ভাবতে পারেন মানুষই বুঝি এই প্রাণীর প্রিয় খাবার। বাস্তবতা মোটেই তা নয়। এরা আঞ্চলিক পাখি, অমেরুদণ্ডী ও স্তন্যপায়ী প্রাণী আহার হিসেবে গ্রহণ করে থাকে। মৃত জীবজন্তু এদের প্রিয় খাবার। এই প্রাণীর লালা বিষাক্ত এবং এদের কামড়ে আহত প্রাণী মারা যেতে পারে। এরা সাধারণত মে ও আগস্ট মাসে মিলনের পর সেপ্টেম্বর মাসে এরা ডিম পাড়ে।

কোমোডো ড্রাগনের একটি পুরুষের গড় আকার আট থেকে নয় ফুট এবং ওজন প্রায় ২০০ পাউন্ড, নারীরা বৃদ্ধি পায় ছয় ফুট পর্যন্ত। কোমোডোর দৃষ্টি ভালো। স্মিথসোনিয়ান চিড়িয়াখানা অনুযায়ী তারা ৯৮৫ ফুট (৩০০ মিটার) পর্যন্ত দূরে অবধি দেখতে পাবে, তারা দ্রুত আক্রমণ করতে পারে। শিকার তাদের পথ অতিক্রম না করা পর্যন্ত কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষা করে। তাদের গন্ধ অনুভূতি হ’ল তাদের প্রাথমিক খাদ্য সনাক্তকারী। তবে সাধারণত এরা মানুষকে আক্রমণ করে না।

স্মিথসোনিয়ান চিড়িয়াখানার মতে, কোমোডো ড্রাগনরা বাতাসের নমুনার জন্য তাদের কাঁটাযুক্ত জিহ্বা সাপের মতো ব্যবহার করে। তারপর জিহ্বাকে তাদের মুখের ভেতরে উপরের তালুতে স্পর্শ করে। এখানেই বিশেষ অঙ্গগুলি আছে যা বায়ুবাহিত অণুগুলির বিশ্লেষণ করে। বাম জিহ্বার ডগায় যদি আরও ঘন “গন্ধ” থাকে তবে ড্রাগন জানে যে তাদের শিকার বাম দিক থেকে কাছে আসছে। কোমোডো খুব বিরল এবং কেবল পাঁচটি দ্বীপে বন্য অবস্থায় পাওয়া যায়। এগুলো হল: কমোডো, রিঙ্কা, গিলি মন্টাং এবং গিলি দাসামির লেজার সুন্দা দ্বীপপুঞ্জ। তারা যেখানেই থাকুক না কেন, কোমোডো চরম উত্তাপ পছন্দ করে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 doorbin24.Com