Notice :
Welcome To Our Website...
কোহলিকে মা বলতেন- তোকে দেখতে অসুস্থ মানুষের মতো লাগে

কোহলিকে মা বলতেন- তোকে দেখতে অসুস্থ মানুষের মতো লাগে

শুধু ব্যাটিং বা নেতৃত্ব নয়, বিরাট কোহলি এখন ফিটনেসের দিক থেকেও অনেক তরুণের আইডল। আধুনিক ক্রিকেটে ফিটনেসটা কতটা গুরুত্বপূর্ণ, কোহলি তার পারফরম্যান্স দিয়েই বুঝিয়ে দিচ্ছেন।

বর্তমান প্রজন্মের সবচেয়ে পরিশ্রমী ক্রিকেটার মনে করা হয় কোহলিকে। নিজেকে ফিট রাখতে পছন্দের অনেক খাবারকেই বাতিলের খাতায় ফেলে দিয়েছেন। ব্যায়াম করে শরীরটাকে বানিয়ে ফেলেছেন একদম ‘মেশিন’।

তবে এই পরিশ্রম তো পুরোটাই বৃথা মনে হয়, যখন ঘরের মানুষই বাঁকা কথা বলে বসেন। কোহলিরও প্রথম প্রথম বেশ হতাশ লাগতো। তবে পরে মনকে মানিয়ে নিয়েছেন, মায়েরা তো এমনই হোন। সন্তানের মুখটা একটু শুকনো দেখলেই তাদের অন্তরটা কেঁদে উঠে।

কোহলির অতি পরিশ্রম আর শুকনো চেহারা দেখে তার মাও ভাবতেন, ছেলে বুঝি অসুস্থতায় ভুগছে। ভারতীয় দলের সতীর্থ মায়াঙ্ক আগারওয়েলের সঙ্গেে আলাপচারিতায় এমন কথাই জানালেন বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান।

কোহলি বলেন, ‘আমার মা সবসময় বলতেন, আমি দুর্বল হয়ে যাচ্ছি। এটা নিয়মিত ঘটনা, সব মা-ই এমন বলবে। তারা দুশ্চিন্তা আর একটি খেলার জন্য পেশাদারিত্বের মধ্যে পার্থক্য বুঝতে পারে না। মায়ের চোখে যদি কোনো বাচ্চাকে মোটা না দেখায়, তার মানে ওর কোনো সমস্যা আছে কিংবা অসুস্থ।’

ভারতীয় অধিনায়ক যোগ করেন, ‘এজন্য সবসময়ই তার কাছে মনে হতো আমি অসুস্থ। প্রতিদিনই তাকে আমি বুঝাতে চাইতাম, আমি অসুস্থ নই। বুঝাতে চাইতাম এটা করছি খেলার জন্য। কিন্তু তাকে বুঝানো খুব কঠিন কাজ ছিল।’

মাকে এভাবে বুঝাতে বুঝাতে এক সময় রাগই উঠে যেত কোহলির। কিন্তু মায়েরা কি আর এসব বুঝতে চান? কোহলির ভাষায়, ‘এটা কখনও কখনও মজার ছিল। কিন্তু মাঝেমধ্যে আমার রাগও লাগতো। কেননা আপনি একটা রুটিনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন আর পরের দিন উঠে শুনছেন-তোকে দেখতে অসুস্থ লাগছে।’

প্রিয় খাবার ত্যাগ করে ফিটনেস ধরে রাখা যে কতটা কঠিন, সেটা কোহলির চেয়ে ভালো আর কে বলতে পারবে! ভারতীয় ব্যাটসম্যান বলেন, ‘যখন টেবিলের মধ্যে মজার মজার খাবার দেখতাম, নিজেকে ধরে রাখা কঠিন ছিল। তবে হ্যাঁ, দিনগুলো ভালো ছিল।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2017 doorbin24.Com