Notice :
Welcome To Our Website...
অর্থপাচারের মামলায় যাবজ্জীবন সাজা চান হাইকোর্ট

অর্থপাচারের মামলায় যাবজ্জীবন সাজা চান হাইকোর্ট

অর্থ পাচারের মামলার বিচারের জন্য বিদ্যমান আইনে সাজার অপ্রতুলতার বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে হাইকোর্ট। আদালত বলেছে, আইনে (মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন,২০১২) সাজার পরিমাণ অনেক কম। এ ধরনের গুরুতর অপরাধের মামলার বিচারের জন্য আইনে যাবজ্জীবন সাজার বিধান রাখা দরকার ছিলো।

চট্টগ্রামের বিসমিল্লাহ গ্রুপের অর্থ পাচারের মামলার এক আসামির জামিন শুনানিকালে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের সমন্বয়ে সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ বুধবার এই মন্তব্য করেন।

আদালত বলেন, লুঘু দণ্ড দিয়ে এ ধরনের অর্থ পাচারের মত দুর্নীতির অপরাধ রোধ করা যাবে না। প্রয়োজনে আইন সংশোধন করে সাজার পরিমাণ বৃদ্ধির বিষয়টি বিবেচনায় নিতে হবে।

বিসমিল্লাহ গ্রুপের অর্থ পাচারের এক মামলায় গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) খাজা সোলেমান আনোয়ার চৌধুরী, তার স্ত্রী ও গ্রুপের চেয়ারম্যান নওরীন হাবিবসহ নয়জনকে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেয় ঢাকার বিশেষ আদালত। একইসঙ্গে ৩০ কোটি ৬৭ লাখ টাকার অর্থদণ্ড দেওয়া হয়। ২০১৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বর এ রায় ঘোষণা করেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০-এর বিচারক আতাবুল্লাহ।

এই মামলার আরেক আসামি জনতা ব্যাংক এলিফ্যান্ট রোড শাখার সিনিয়র এক্সিকিউটিভ অফিসার এসএম শোয়েব উল কবিরের ১০ বছর সাজা হয়। এরপর আত্মসমর্পণ করলে তাকে কারাগারে পাঠায় বিশেষ আদালত। কারাগার থেকে সাজার বিরুদ্ধে আপিল করেন। এরপর তিনি হাইকোর্টে জামিন চান।

আসামির জামিন শুনানিতে দুদকের কৌসুলি ব্যারিস্টার হাসান এমএস আজিম বলেন, এই অর্থ পাচারের ঘটনায় সহযোগিতা করেছেন ঐ ব্যাংক কর্মকর্তা। তাকে বিচারিক আদালত ১০ বছরের সাজা দিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2017 doorbin24.Com